সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

চাইলে এখানে সাবহেডিং লিখুন

সিরাজগঞ্জ সদরে বকুল হায়দার বকুল (৫২) নামে এক ইউপি সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। একদিন পরও পুলিশ ঘটনার কোনো রহস্য উদঘাটন বা কাউকে আটক করতে পারেনি। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নিজ বাড়ির কাছে সিরাজগঞ্জ-কাজিপুর আঞ্চলিক সড়কের দত্তবাড়ি ব্রিজের কাছে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বকুল হায়দার উপজলোর বাগবাটি ইউনিয়নের দত্তবাড়ি গ্রামের মৃত হযরত আলী মুন্সীর ছেলে। তিনি ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বকুল হায়দার সহযোগী রফিকুল ইসলামের সাথে মোটরসাইকেলযোগে পিপুলবাড়ীয়া বাজার থেকে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। তারা দত্তবাড়ি ব্রিজের কাছে পৌঁছলে তাদের মোটরসাইকেলের গতিরোধ গুলি করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হলে রাত সোয়া ৮টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

তার মাথার ডান সাইডে একটি গুলি লেগেছে। শরীরের অন্য কোথায় কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। নিহত বকুলের নিকট আত্মীয় এবং তাকে বহনকারী মোটরসাইকেলের চালক রফিকুল ইসলামকে (৫৫) ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ আলীকে ঘটনার রাতেই পুলিশ হেফাজতে নেয়া হলেও রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত তাদের আটক বা ছেড়ে দেয়া হয়নি। তারা কেউই পুলিশকে ঘটনার বিষয়ে কোন তথ্যও দেয়নি।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফোরকান শিকদার বলেন, সংবাদ পাওয়ার পর রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। ইউপি সদস্যকে হত্যার উদ্দেশ্যে খুব কাছ থেকে গুলি করা হয়েছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতা থেকে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন হত্যাকাণ্ডের পর পাশে মটর সাইকেল রেখে বকুলকে বহনকারী চালক রফিকুল দাঁড়িয়েছিল। ঘটনার সময় সে কোন আঘাতপ্রাপ্ত হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে, হত্যাকারীদের সম্পর্কে সে অবগত। এ কারণে রাতেই তাকেসহ দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে।

এদিকে, নিহতের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হলে রোববার দুপুরে জানাযা শেষে দাফন করা হয়। জানাজায় অংশ নিয়ে সিরাজগঞ্জ-২ আসনের এমপি ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সাবেক এমপি তানভীর শাকিল জয় ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন।

আরও পড়ুন