উত্তরখানে সোহাগ হত্যার আসমি আটক

উত্তরখানে সোহাগ হত্যার আসমি আটক "টিভি সিরিয়াল থেকে অপরাধ-আত্নগোপন রপ্ত কিশোর গ্যাং"-র‍্যাব ১

গত ২৭ আগস্ট রিক্সাচালককে মারধর করার প্রতিবাদে উত্তরখান কলেজের ছাত্র সোহাগকে(২১) হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

 

গত ২৭ আগস্ট রিক্সাচালককে মারধর করার প্রতিবাদে উত্তরখান কলেজের ছাত্র সোহাগকে(২১) হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এদিকে তদন্তের ভিত্তিতে এই হত্যার সাথে জড়িত ‘দ্যা বস’ গ্যাংয়ের টিম লিডার হৃদয়সহ আরো ২ জনকে আটক করে র‍্যাব। আটকৃতদের মধ্যে মাহবুবুল ইসলাম রাসেল ওরফে কাটা রাসেল(২০)। সোহাগ হত্যার সাথে জড়িত এই দুইজনই প্রধান আসমি। র‍্যাব জানায়,এই হত্যার সাথে জড়িত ২ জনই ‘রগকাটা গ্রুপের সদস্য।এরা সোহাগকে হত্যার পর দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্ঠায় ছিলো বলে জানায় যায়। গত ২২ সেপ্টেম্বর রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের র‍্যাব-১ শাফী উল্লাহ বুলবুল জানান। তবে আসামিদের আটকের পূর্বে দক্ষিণখান মোল্লারটেক এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করে র‍্যাব। আসামিদের আটকের সময় তাদের কাছ থেকে ২টি বিদেশি পিস্তল,ম্যাগাজি ও ৮ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে র‍্যাব-১। তবে র‍্যাবে-১ এর শাফি উল্লাহ বুলবুল মনে করেন, এরা দেশি-বিদেশি টিভিতে অপরাধ মূলক সিরিয়াল দেখে অপরাধ ও আত্নগোপনের কৌশল আয়ত্ত করেছে। তিনি আরো বলেন,যদিও এই অপরাধীদের আটক করতে একটু কষ্ট পোহাতে হয়েছে। করোনা সংক্রামনের জন্য সীমান্তে কড়াকড়ি পাহারার কারনে তারা পালাতে পারেনি। কাটা রাসেলের কাছ থেকে জানা যায়, সে দ্বাদশ শ্রেনির শিক্ষার্থী। সূত্রে জানা যায়, হৃদয়ের তত্বাবধায়নেই গড়ে উঠেছে কিশোর ‘গ্যাং গ্রুপ দ্যা বস’।এরা বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে সাধারন মানুষদের রগ কেটে ফেলার হুমকি দিয়ে থাকে। এই গ্রুপে নাদিম,রাসেল,মেহেদি,সাব্বির,সানিসহ এলাকায় উঠতি বয়সের কিশোর, এদের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে উঠে এবং কিশোর দ্যা বর্স হৃদয়ের সাথে। সোহাগকে হত্যার পর এই হত্যাকারিরা এক জায়গায় দুই এক দিনের বেশি অবস্থান করতো না তারা। সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ আগস্ট উত্তরখানে বাজাবাড়ি খ্রিস্টান পাড়া রোডে কিশোর গ্যাং এর হাতে খুন হয় উত্তরা পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজের ছাত্র সোহাগ(২১)। সোহাগ এক রিক্সাচালককে মারধর করার প্রতিবাদে রাসেল ও হৃদয় মোবাইলে কল করে তাদের রগকাটা গ্যাং এর সদস্য মেহেদি,সাব্বির,সাদ,নাদিম,রাসেল,সানিসহ তাদের কাছে ডেকে আনে এবং এক পর্যায় সোহাগের ওপর তারা উত্তেজিত হয়ে তাদেরকাছে থাকা ধারালো ছোরা দিয়ে সোহাগের ওপর এলোপাতারি আঘাত করে রাসেল। এ আঘাতে সোহাগ গুরুত্বর যখম হলে তাকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে। এ হত্যা ঘটনায় উত্তরখান থানা মামলা হয়।

টোয়েন্টিফোর বাংলাদেশ নিউজ/কাজি আরিফ হাসান

আরও পড়ুন