গোল মিসের মহড়া দেখিয়ে বিদায় নিল বার্সা

গোল মিসের মহড়ায়, নাটকীয় কিছু করা হলোনা বার্সেলোনার। পিএসজির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে, দুই লেগ মিলিয়ে ৫-২ ব্যবধানে হারায়, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শীর্ষ ষোলো থেকে বিদায় নিলো কাতালানরা। এদিন দুর্দান্ত এক গোল করলেও, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৬ বছর পর পেনাল্টি মিসের যন্ত্রণায় পুড়েছেন লিওনেল মেসি। তবে, পিএসজির হয়ে পেনাল্টি থেকে গোল করেছেন কিলিয়ান এমব্যাপ্পে।

না, এবার আর হলোনা। গোলের অগণিত সুযোগ নষ্ট করে কি আর এমন সমীকরণ মেলানো যায়! ৪ বছর আগে কাতালানদের বর্বর আঘাতে লুটিয়ে পড়া প্যারিস আবার দাঁড়ালো মাথা তুলে। আইফেল টাওয়ারের শহরে প্যারিসিয়ানদের এমন উন্নত শিরই তো মানায়।

 

দোর্দণ্ড প্রতাপে স্প্যানিশদের হটাতে পেরেছে ফ্রেঞ্চরা, বিষয়টা একেবারে তা নয়। তবে, ঘর আগলে রাখার চেষ্টায় সফল পিএসজি। আরও নির্দিষ্ট করে বললে, কেইলর নাভাস। কোস্টারিকান গোলরক্ষকের বীরত্বেই তো রূপকথার পথটায় হাঁটা হলোনা কোম্যানদের। স্মৃতির পাতায় এখন লেখা শুধুই আফসোসের প্যারাগ্রাফ।

 

পার্ক দে প্রিন্সেসে শুরু থেকেই বেপরোয়া বার্সেলোনা। ২০০৩-০৪ মৌসুমের পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ম্যাচের প্রথমার্ধে ৯ বার গোলে শটের এমন অভিজ্ঞতা আর কোনো দলের বিপক্ষে ফ্রেঞ্চ জায়ান্টদের হয়নি। কিন্তু, এসব আক্রমণ থেকে কি’ই বা এনে দিতে পারলেন ডেম্বেলে-সার্জিনো ডেস্টরা!

 

পা ছোঁয়ালেই বল জড়ায় জালে, এমন সুযোগও হারিয়েছে মেসিরা। গ্যালারি থেকে এদিন পিএসজিকে সমর্থন দিয়ে গেছেন ইনজুরি আক্রান্ত নেইমার। ২০১৭’তে বার্সার জার্সিতে এই পিএসজির বিপক্ষে মহাকাব্যিক ৬-১ গোলের জয়ের নায়ক নিশ্চয়ই পুরনো বন্ধুর এমন মিসে হতাশ হননি।

 

একে তো প্রথম লেগেই ৪-১ গোলে এগিয়ে ছিলো পিএসজি। তারওপর ফিরতি পর্বে ৩০ মিনিটে পেয়ে গেলো পেনাল্টি। ক্যাম্প ন্যু’য়ের হ্যাটট্রিক ম্যান কিলিয়ান এমব্যাপ্পের স্কোর করতে ভুল হয়নি। মেসির ২২ বছর ২৮৬ দিন বয়সের রেকর্ড ভেঙে সর্বকনিষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে ২২ বছর ৮০ দিন বয়সে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ২৫ গোলের নতুন রেকর্ড লিখলেন ফ্রেঞ্চ নাম্বার সেভেন।

 

জ্বলজ্বলে অধ্যায়টা হয়তো শেষের পথে। কিন্তু, আর্জেন্টাইন জাদুকর তো শেষের গল্পেও স্বপ্নদ্রষ্টা। ডুবতে থাকা কাতালান তরী নতুন করে দিশা পেলো লিওনেলের সমতা ফেরানো চোখ ধাঁধানো গোলে।

 

তবে, নিজের আঁকা ছবিটায় রং দিতে পারেননি মেসি। কোপা আমেরিকার ঐ ফাইনালের মতোই, মহাগুরুত্বপূর্ণ স্পটকিক গন্তব্যহীন।

বিরতির পর বদলায় গোলপোস্ট। তবে, বদলায়নি চিত্র। পিএসজির ডি-বক্সে হুমড়ি খেয়ে পড়লেও, নাভাস-মার্কুইনহোসদের দেয়াল টপকাতে ব্যর্থ মেসি-ডেম্বেলে-বুসকেটসরা। ১৬ বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে নেই মেসি-রোনালদোর কেউই।

সূত্রঃ সময় নিউজ
আরও পড়ুন