স্পিডবোট ও ট্রলারের পাখা খুলে নিলেন ভ্রাম্যমাণ আদালত

মাদারীপুরের বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে যাত্রীদের নিরাপত্তায় স্পিডবোট ও ট্রলারের পাখা খুলে নিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার (০৭ মে) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শতাধিক স্পিডবোট ও ট্রলারের ইঞ্জিনের পাখা খুলে রাখা হয়। শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটে অভিযান চালান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামান।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, গত সোমবার স্পিডবোট দুর্ঘটনায় প্রাণ হারায় ২৬ যাত্রী। সরকারের লকডাউন অমান্য করে স্পিডবোট চলাচলে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। আসছে ঈদ-উল ফিতরে এই নৌরুটে যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। তাই দুর্ঘটনা এড়াতে পদ্মা নদীতে পারাপারের জন্য ট্রলার ও স্পিডবোট বন্ধ রাখতে এগুলোর ইঞ্জিনের পাখা খুলে জব্দ করা হয়েছে। যাতে কোনো চালক নদীতে একটি নৌযান চালাতে না পারে।

এদিকে শুক্রবার বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই এই নৌরুটে যাত্রীদের চাপ বাড়তে থাকে। স্পিডবোট, লঞ্চ ও ট্রলার বন্ধ থাকায় ফেরিতে ছিল উপচেপড়া ভিড়। ফলে স্বাস্থ্যবিধি পালনের কোনও হদিসই ছিল না। সবাই গাদাগাদি করে ফেরিতে সাত কিলোমিটারের পদ্মানদী পাড়ি দিচ্ছে।

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামান জানান, আসন সংখ্যা নির্ধারণ করে সরকারি বিধি মেনে স্পিডবোট চলাচল করবে। প্রাথমিকভাবে স্পিডবোট ও ট্রলারের ইঞ্জিনের পাখা জব্দ করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না পেলে এই নৌরুটে যাত্রী পারাপারকারী কোনও নৌযান চলতে পারবে না বলেও জানান তিনি।

টুয়েন্টিফোর বাংলাদেশ নিউজ/এসকে
আরও পড়ুন