একদিনে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ১১৯

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরো ১১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। সরকারি হিসেবে, করোনার ইতিহাসে এটি সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। এর আগে গত ১৯ এপ্রিল এক দিনে সর্বোচ্চ ১১২ মৃত্যুর খবর দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। নতুন ১১৯ মৃত্যু নিয়ে মোট প্রাণহানি ঘটল ১৪ হাজার ১৭২ জন মানুষের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর রোববার তাদের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৪ হাজার ৪০০। নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৫ হাজার ২৬৮ জন। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

অধিদপ্তর আরো জানায়, এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছে ৮ লাখ ৮৮ হাজার ৪০৬ জন। গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ ৩ হাজার ২৪৯ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ ৮ লাখ ০৪ হাজার ১০৩।

বর্তমানে দেশের অধিকাংশ জেলা করোনার ভয়াবহতার ঝুঁকিতে রয়েছে। ১৪ থেকে ২০ জুন নমুনা পরীক্ষা ও রোগী শনাক্তের হার বিবেচনায় নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাপ্তাহিক রোগতাত্ত্বিক বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৪০টিই সংক্রমণের অতি উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানদণ্ড অনুযায়ী, কোনো দেশে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে কি না, তা বোঝার একটি নির্দেশক হলো রোগী শনাক্তের হার। কোনো দেশে টানা দুই সপ্তাহের বেশি সময় পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরা যায়। সেখানে কয়েক দিন ধরে বাংলাদেশে রোগী শনাক্তের হার ২০ শতাংশের বেশি হচ্ছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণ দেখা দেয়। পরে তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। তারপর ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। গত বছরের শেষ দিকে এসে সংক্রমণ কমতে থাকে।

টুয়েন্টিফোর বাংলাদেশ নিউজ/এসকে
আরও পড়ুন