লকডাউন দেখতে বের হয়ে আটক আড়াই শতাধিক

কঠোর লকডাউনের বিধিনিষেধ না মানায় রাজধানীতে এখন পর্যন্ত ২৪৯ জনকে আটক করেছে ডিএমপি। একইসঙ্গে ২২২ গাড়িকে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সাত দিনের লকডাউনের প্রথম দিনে নগরীর প্রায় প্রতিটি মোড়েই রয়েছে চেকপোস্ট। জিজ্ঞাসাবাদে সন্তোষজনক উত্তর না দিতে পারলেই গুণতে হচ্ছে জরিমানা। তবে, আগের লকডাউনের তুলনায় এবার অযৌক্তিক কারণে মানুষ রাস্তায় কম বের হচ্ছে বলে জানায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

 

অপ্রয়োজনে রাস্তায় বের হওয়ায় রাজধানী ঢাকার মিরপুর, তেজগাঁও, মোহাম্মদপুর, হাতিরঝিল এলাকা থেকে আড়াইশ ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। যারা বের হয়েছেন তারা কোনো যৌক্তিক কারণ দেখাতে পারেননি তাই তাদের আটক করা হয়েছে।

 

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার সকাল থেকে রাজধানীর অন্যতম ব্যস্ততম এলাকা শাহবাগ মোড়সহ বিভিন্ন স্পটে তল্লাশি চৌকি বসায় র‍্যাব। ও পুলিশের পাশাপাশি কাজ করছে সেনাবাহিনী। প্রতিটি যানবাহন থামিয়ে জানতে চাওয়া হয় বের হওয়ার কারণ। যৌক্তিক কারণ না দেখাতে পারলেই গুণতে হয় জরিমানা। চেকপোস্টগুলোতে জরিমানার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি পালনে ছিল কঠোর অবস্থান। মাস্ক ছাড়া গন্তব্যে যেতে দেয়া হয়নি কাউকে।

 

লকডাউনের বিধি নিষেধ না মানলে শুধু জরিমানা নয় আরো কঠোর শাস্তি হতে পারে বলে জানান র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

 

গণপরিবহন, সিএনজি ও ব্যক্তিগত গাড়ির চলাচল কম থাকায় রাজধানীর বেশিরভাগ সড়ক ফাঁকা। ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেলে করে যারা চলাচল করেন চেকপোস্টে তাদের পড়তে হয় পুলিশের জেরার মুখে।

 

ঢাকা মহানগর পুলিশের এডিসি (মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশনস্) জানান, পুলিশ লকডাউন কার্যকর করতে সক্রিয় আছে। রাজধানীতে অপ্রয়োজনে মানুষজন খুব কমই বের হয়েছে। যারা বের হয়েছে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বের হওয়ার কারণ জানাতে না পারলে তাদের আটক করা হচ্ছে। আটক করা হবে এই ঘোষণা গতকালই দিয়েছেন ডিএমপির কমিশনার। তার নির্দেশনা মতোই পুলিশ মাঠে রয়েছে।

 

এদিকে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার মৃত্যুঞ্জয় দে সজল দেশের একটি শীর্ষ পত্রিকাকে জানান, তেজগাঁও থানায় ৩০ জন, তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় ৮ জন, মোহাম্মদপুর থানায় ২৬ জন, আদাবর থানায় ১৮ জন, শেরেবাংলা নগর থানায় ৪৩ জন ও হাতিরঝিল থানায় ৪২ জনকে আটক করা হয়। অকারণে বাসা থেকে বের হওয়ায় তাদের আটক করা হয়েছে।

 

পুলিশের মিরপুর বিভাগের উপকমিশনার আ স ম মাহাতাবউদ্দিন বলেন, মিরপুরের দারুস সালাম, পল্লবীসহ বিভিন্ন থানা এলাকায় পুলিশ অভিযান চালায়। সকাল থেকে মিরপুর বিভাগের ছয় থানার পুলিশ টহল দিচ্ছিল। মানুষ সরকারি বিধিনিষেধ না মেনে রাস্তায় বের হন। তাদের মধ্যে কেউ জানান, লকডাউন কেমন হয় তা দেখতে বের হয়েছেন। কেউ বলেন, তারা লকডাউনের কথা জানেন না।

টুয়েন্টিফোর বাংলাদেশ নিউজ/এসকে
আরও পড়ুন