ঢাকার রাস্তা প্রায় ফাঁকা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে সকালে রাজধানীর সড়কে মানুষের চলাচল কম। শুক্রবার বেশিরভাগ শিল্পকারখানা বন্ধ থাকায় সড়কে গাড়িও চলছে কম। তবে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে লোকজনের চলাচল নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

 

সেনাবাহিনীর সদস্যরাও গাড়ি নিয়ে টহল দিচ্ছেন। বিভিন্ন প্রয়োজনে বাইরে বের হওয়া লোকজনকে থামিয়ে জানতে চাওয়া হচ্ছে চলাচলের কারণ। বেশিরভাগই যৌক্তিক কারণ দেখাচ্ছে বলে জানিয়েছে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী। বিনা প্রয়োজনে কেউ চলাচল করলে বাড়ি ফিরে যাওয়ারও আনুরোধ করা হচ্ছে। সড়কে জরুরি সেবা ওপণ্যবাহী গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। চোকপোস্টে ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেল থামিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজ পরীক্ষা করা হচ্ছে।

 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে সাত দিনের কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। গতকালের তুলনায় আজ সকালে রিকশা ও ব্যক্তিগত গাড়ি একেবারেই কম চোখে পড়েছে।

 

রাজধানীর পান্থপথ, বাংলামোটর, খিলগাঁও, ফার্মগেট এলাকায় বেশির ভাগ দোকানপাট বন্ধ ছিল। প্রধান সড়কের তুলনায় অলিগলিতে মানুষের চলাফেরা কিছুটা বেশি চোখে পড়েছে। সকালের দিকে গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠানের যানবাহন যাতায়াত করতে দেখা গেছে। পণ্যবাহী কিছু যান চলেছে।

 

গতকাল যারা বিনা কারণে বের হয়েছেন, তাদের অনেককেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হতে হয়েছে অথবা জরিমানা দিতে হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) জানিয়েছে, যৌক্তিক কারণ ছাড়া বের হওয়ায় গতকাল ঢাকায় পাঁচ‌’শ জনকে আটক করা হয়।

 

২৫৮ জনকে গ্রেপ্তার ও ৮ জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা দেয়া হয়েছে। ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়েছে প্রায় ৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকা। এর বাইরে র‍্যাব ৪০টি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সারা দেশে ১৮২ জনকে ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

রাজধানীর বাইরে চট্টগ্রামে সকাল থেকে কঠোর অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিভিন্ন সড়ক ও মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়ে তারা লোক চলাচল নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন। তবে সড়কগুলোতে রিকশা চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। পাশাপাশি ব্যক্তিগত গাড়িও দেখা গেছে।

 

এছাড়া সিলেট, খুলনা, ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন জেলার সড়ক মহাসড়ক ছিল একেবারেই ফাঁকা। তবে কোনো কোনো পাড়া-মহল্লায় মানুষের জটলা দেখা গেছে। আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেছে সব জরুরি সেবাসহ শিল্পকারখানা। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

টুয়েন্টিফোর বাংলাদেশ নিউজ/এসকে
আরও পড়ুন