সিনেমা বানাতে মহাকাশে রাশিয়া

ভরশূন্য অবস্থায় প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রের শ্যুটিংয়ের জন্য এক অভিনেত্রী, অভিনেতা ও পরিচালককে নিয়ে মঙ্গলবার রাশিয়ার তিন জন মহাকাশে গেছেন বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি। কলাকুশলীদের নিয়ে চলচ্চিত্রের শ্যুটিংয়ের জন্য হলিউডের অভিনেতা টম ক্রুজের মহাকাশে যাওয়ার কথা নভেম্বরে। তবে তার আগেই রাশিয়ার এ তিনজন মহাকাশে গিয়ে আমেরিকাকে পিছনে ফেললো মহাকাশে চলচ্চিত্রের শ্যুটিংয়ের দৌড়েও। ৬০ বছর আগেও মহাকাশ অভিযান রুশদের কাছেই হেরেছিল আমেরিকা।

মহাকাশে প্রথম মহাকাশচারী পাঠানোর অভিযানেও আমেরিকাকে হারতে হয়েছিল ছয় দশক আগে। মহাকাশে প্রথম পাড়ি দিয়েছিলেন সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের মহাকাশচারী ইউরি গ্যাগারিন। ১৯৬১-র ১২ এপ্রিল পৃথিবীকে এক বার প্রদক্ষিণ করেছিলেন। তার ৬০ বছর পর সেই রুশদের কাছেই হার মানতে হল আমেরিকাকে।

প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রের শ্যুটিংয়ের জন্য মঙ্গলবার রাতে কাজাখস্তানের বৈকানুর কসমোড্রোম থেকে ‘সয়ুজ এমএস-১৯’ মহাকাশযানে চেপে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে পৌঁছান রুশ মহাকাশচারী ও অভিনেতা অ্যান্টন স্কাপলেরভ, খ্যাতনামা রুশ অভিনেত্রী জুলিয়া পেরেসলিড এবং পরিচালক-প্রযোজক ক্লিম শিপেঙ্কো। তাদের সেই চলচ্চিত্রের নাম দেয়া হয়েছে, ‘চ্যালেঞ্জ’। ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৪০০ কিলোমিটার উচ্চতায় পৃথিবীকে নানা কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করতে থাকা মহাকাশ স্টেশনেই হবে সেই পূর্ণদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রের শ্যুটিং। যা এই প্রথম।

‘গ্র্যাভিটি’ বা ‘ইন্টারস্টেলার’ নয়। নয় হলিউডে বানানো কোনও কল্পবিজ্ঞানভিত্তিক চলচ্চিত্র। সেই চলচ্চিত্রের বিষয়বস্তুও হবে কল্পবিজ্ঞান ছবির চেয়ে অনেক বেশি বাস্তব। যাতে কল্পনার রং থাকলেও মহাকাশের বাস্তবতার ভিতটা হবে অনেক বেশি শক্তপোক্ত। কোনও যুদ্ধ-টুদ্ধ নয়। থাকবে মাটির গন্ধ। মনুষ্যত্বের রং। পেরেসলিড রাশিয়ায় মঞ্চ, টেলিভিশন আর পূর্ণদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রে খুবই পরিচিত নাম। আর মূলত মহাকাশচারী হলেও অ্যান্টন স্কাপলেরভ এই প্রথম অভিনয় করবেন কোনও চলচ্চিত্রে।

রুশ পরিচালক ও প্রযোজক শিপেঙ্কো জানিয়েছেন, সেই চলচ্চিত্রের নাম ‘চ্যালেঞ্জ’। রুশ ভাষায় ‘ভাইজভ্‌’। গল্পে কোনও ‘স্পেস ওয়ার’ বা মহাকাশ যুদ্ধের ছিটেফোঁটাও নেই। এক সাধারণ মানুষকে নিয়েই গল্প। যিনি পেশায় একজন শল্য চিকিৎসক। কোনও দিন স্বপ্নেও ভাবেননি, যাবেন মহাকাশে। সেই তাকেই হঠাৎ মহাকাশে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হয়। বলা হল, চাইলে যেতে পারেন আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে। রাজি হয়ে গেলেন সেই চিকিৎসক। গিয়ে তিনিই মহাকাশ স্টেশনে থাকা এক মহাকাশচারীর জীবন বাঁচিয়ে দিলেন। কী ভাবে, তা নিয়েই টানটান গল্প। সঙ্গে মহাকাশ স্টেশনের ভরশূন্য অবস্থায় থাকার স্বাভাবিকতা।

অভিনেত্রী জুলিয়া জানিয়েছেন শ্যুটিংয়ের সময় ও তার আগে-পরে তিনিই হবেন নিজের রূপটান শিল্পী তথা পোশাক শিল্পী।

তবে মূল সমস্যা পরিচালক অভিনেতা ক্লিম শিপেঙ্কোর উচ্চতা। তিনি ৬ ফুট ২ ইঞ্চির। এই উচ্চতা নিয়ে মহাকাশযানে চলচ্চিত্রের পরিচালনা ও অভিনয়ে তাঁর যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, তার জন্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন শিপেঙ্কো। তার লাল গ্রহ মঙ্গলে গিয়েও চলচ্চিত্রের শ্যুটিং করার ইচ্ছা রয়েছে।

টুয়েন্টিফোর বাংলাদেশ নিউজ/এসকে
আরও পড়ুন